শিলখালীতে কর্মসৃজন প্রকল্পের কমিটি নিয়ে টানাপোড়ন!

Pekua20160331151031পেকুয়া সংবাদদাতা :
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার শিলখালীতে কর্মসৃজন প্রকল্পের কমিটি গঠন নিয়ে টানাপোড়নের খবর পাওয়া গেছে। এনিয়ে ওই ইউনিয়নে যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শুরু ও বাস্তবায়নে চরম অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। জানা যায়, বর্তমান সরকারের হতদরিদ্র কর্মসংস্থানে প্রবর্তিত কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ শুরুর বরাদ্ধ দেয়া হয়। নির্বাচন কমিশন ২য় দফার ইউপি নির্বাচন অনুষ্টানে পেকুয়ায়ও ৭ইউনিয়নে নির্বাচন নির্ধারিত থাকায় প্রকল্পটির কাজ স্থগিত রাখেন স্থানীয় প্রশাসন। গত ৩১মার্চ যথারীতি নির্বাচন সম্পন্নও হয়। নির্বাচনের ফলে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের আইন মোতাবেক প্রকল্পটির কাজে দেখা দেয় আইনগত বিপত্তি। গত মেয়াদে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের মেয়াদ উত্তীর্ণ আর নতুন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের শপথ গ্রহন সম্পন্ন না হওয়ায় কর্মসৃজন প্রকল্পের প্রক্রিয়ায় দেখা দেয় জঠিলতা। পরে, নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পের কাজ সম্পন্নে সরকারের উর্ধ্বতন মহল ও কর্তৃপক্ষের নির্দ্দেশিত প্রক্রিয়ায় তার কাজ সম্পন্নে সংশ্লিষ্ট সকল ইউনিয়ন পরিষদে বিশেষ জরুরী নির্দ্দেশনা দেয় উপজেলা প্রশাসন। নির্দ্দেশনায় সংশ্লিষ্ট ইউপি সচিবের সার্বিক তত্বাবধানে স্থানীয় সমাজ সংগঠক, এলাকার গণ্যমান্য নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ এবং গ্রহনযোগ্যদের সমন্বয়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ শুরু ও সমাপ্তির কথা জানান। এনিয়ে প্রায় প্রস্তুতি শেষের পথে নেয়া হলেও এতে বাঁধ সাধেন জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃস্থানীয়রা। ফলে, যথাসময়ে এখনো শুরু সম্ভব হয়নি কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ। যা নিয়ে চলছে চরম মতবিরোধ আর টানাপোড়ন। নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, শিলখালীতে কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ নিয়ে স্থানীয় বিএনপি সমর্থীত চেয়ারম্যান স্বার্থ সিদ্ধিতে মরিয়া শুধু নয় ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ঠেকানোর রাজনীতিও শুরু করেছেন। যানিয়ে সেখানে এখন আ’লীগ বিএনপি মুখোমুখী অবস্থান গ্রহন করেছে। এ বিষয়ে জানতে পিআইও অফিসের সাথে যোগাযোগ করলে সেখানে কর্মরতরা মুখ খুলতে রাজী হননি। এবিষয়ে জানতে গতকাল ২৫এপ্রিল সোমবার বিকাল ৫টায় পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুর রশিদ খানের ব্যবহৃত মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে সংযোগটি বন্ধ পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*