ডিসি সড়কে শুধুই যানজট

regular_traffic_jamঈদগাঁও:: কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও বাজার ডিসি সড়কটি এখন প্রাত্যাহিক যানজটের কবলে পড়েছে। এমনকি সড়কের পাশ জুড়ে কাঁচা তরকারি ব্যবসা আর মূল দোকানের উপভাড়ায় ঝুপড়ি দোকানের কারণে সাধারণ লোকজন ও ছোট-বড় যানবাহন যাতায়াত করতে নানাভাবে হিমশিম খাচ্ছে। এমনকি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও এ যানজটের কবলে পড়তে দেখা যায়।

এছাড়া ও চলাচলের প্রধান ডিসি সড়কসহ যত্রতত্র স্থানে তরকারি বাজার বললেই চলে। যাতে করে বৃহত্তর এলাকার লোকজন আর ছোটবড় যানবাহন চলাচলে দুর্ভোগ আর দূর্গতি চরম পর্যায়ে পৌছেছে। জানা যায়, জেলা সদরের ঐতিহ্যবাহী ঈদগাঁও বাজারে প্রতিনিয়ত বাসস্টেশন থেকে ঈদগাহ হাইস্কুল গেইটের ডিসি সড়কের দু’পাশে যেন নানা তরি তরকারী বাজারে সয়লাব হয়ে উঠেছে। যার ফলে বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা ছয় ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামগঞ্জ থেকে আসা লোকজন প্রায়শঃ দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে।

ঈদগাঁওয়ের ভোমরিয়াঘোনা, মাছুয়াখালী, কালিরছড়া, ইসলামাবাদের গজালিয়া, রামুর ঈদগড়, আর নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ও চকরিয়ার খুটাখালী, রামুর রশিদ নগরসহ প্রত্যন্ত গ্রামগঞ্জ থেকে এসব তরিতরকারী ব্যবসায়ীরা অল্পদামে কিনে এনে ঈদগাঁও বাজারে ডিসি সড়কের পাশ ঘেঁসে বসে টু পাইস কামিয়ে নিচ্ছে। এসব বিষয়ে দেখার কেউ না থাকায় হতাশ হয়ে পড়েছেন দূর-দূরান্ত থেকে বাজারে আসা লোকজন। অন্যদিকে বাজারে বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যসহ মালবাহী দূর পাল্লার যানবাহন আসতে চরম অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। কেননা, ডিসি সড়কের পাশ ঘেঁষে তরি তরকারী ব্যবসায়ী, শুকনা মাছ ব্যবসায়ী, ভ্রাম্যমান ঔষধ ব্যবসায়ীসহ নানা ধরণের ব্যবসায় সড়কটি যেন চলাচলের কোন সুযোগই নেই।

একদিকে ডিসি সড়কের উপরে নানা ব্যবসা, অন্যদিকে মূল দোকানের সামনে উপভাড়া হিসাবে নিয়ে ব্যবসা করছে অনেকে। এ দু’ সমস্যায় জর্জরিত প্রতিনিয়ত চলাচলরত লোকজন। এসব থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার কোন উপায় নেই বলে জানান অনেক পথচারী। এসব বিষয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলেও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নেই নজর। খুটাখালী থেকে আসা এক ভদ্রলোকের মতে, জেলার দ্বিতীয় বাণিজ্যিক নগরী হিসাবে পরিচিত ঈদগাঁও বাজার পূর্বে যে সুনাম ছিল, তা এখন দিন ক্ষুন্ন হতে যাচ্ছে।

যার কারণ, বাজারে সঠিক ব্যবস্থাপনা না থাকায় যত্রতত্র স্থানে হকার, ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীদের দখলে চলে যাচ্ছে। এসব বিষয়ে নজর থাকায় এহেন অবস্থার সৃষ্টি বলে জানান তিনি। বাজারে কেনাকাটা করতে আসা সাবরিনাসহ বেশ ক’জন নারী ক্রেতার মতে, বাজারে নেই কোন হাটাচলার পরিবেশ। যেখানে সেখানে তরকারি বাজার। ডিসি সড়কের প্রধান অংশের উপর যেন এসব ব্যবসা লেগেই আছে। তবে সচেতন মহলের মতে, এসব বিষয়ে এখন থেকে ব্যবস্থা না নিলে বাজারের শৃঙ্খলার পরিস্থিতি দিন দিন অবনতির দিকে চলে যাবে। আবার ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের গেইটের দুদিকে যেন ডিসি সড়কের উপর নানা ব্যবসায়ী আড়াআড়ি করে প্রায়শঃ ব্যবসা করে যাচ্ছে। এমনকি সাধারণ লোকজনের হাটাচলার পরিবেশও মাঝে মধ্যে থাকেনা।

তবে দূর-দূরান্ত থেকে বাজারে আসা ক’জনের মতে, নির্দিষ্ট তরিতরকারী বাজার থাকার পরেও ডিসি সড়কের পাশ ঘেঁষে তরকারি বাজার আসলে দুঃখ জনক। এসব নিয়ে বাজার কমিটি পদক্ষেপ না নিলে হয়ত বাজারের অব্যবস্থাপনা থেকে যাবে। এসব কিছু শক্ত হাতে দমন করার প্রতিও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

ব্যবসায়ী নেতা ছৈয়দ করিমের মতে, ডিসি সড়কের উপর কাঁচা তরকারী বাজার বসার ফলে যানজট একের পর এক লেগেই আছে। প্রতিনিয়ত যানজটের কবল থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বাজারবাসী ইজারাদারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। অন্যদিকে বাজার ইজারাদারের মুঠোফোনে সংযোগ না পাওয়ায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*